গুগল ম্যাপ কিভাবে আয় করে

গুগল ম্যাপ
গুগল ম্যাপ

ইন্টারনেটের জন্য আমাদের জীবন খুব সহজ ও সক্রিয় করে দিয়েছে। আর ইন্টারনেট ভিত্তিক সার্ভিস গুলোর মধ্যে গুগলের সার্ভিস বেশি ব্যবহৃত হচ্ছে। গুগলের অন্যতম একটি সার্ভিস হলো গুগল ম্যাপ।”

এক রিসার্স অনুযায়ী, ২০২৩ সালে গুগল ম্যাপের আয় দাড়াবে ১১ বিলিয়ন ডলারেরও বেশি।” এছাড়াও গুগল ম্যাপের মাসিক একটিভ ইউজার সংখ্যা ১ বিলিয়নের বেশি। অন্যদিকে ইতিমধ্যেই ২০০ টিরও বেশি দেশকে কভার করেছে প্লাটফর্মটি।

গুগল ম্যাপের কিছু ধারণাঃ

অষ্ট্রেলিয়ার একটি কোম্পানি Where 2 Technology” এর দুজন ডেভলপার Lars Rasmussen ও Jens Rasmussen একটি C++ প্রোগ্রাম তৈরি করেন যা একটি আলাদা এপ্লিকেশন হিসেবে ডাউনলোড করে ব্যবহার করতে হতো। গুগল ম্যাপের শুরুটা মূলত এই এপ্লিকেশনটি থেকেই।”

আরো পড়ুনঃ দুর্দান্ত ক্যামেরা ও আকর্ষনীয় ফিচার-সহ বাজারে আসতে চলেছে Xiaomi 12 স্মার্টফোন

২০০৪ সালে গুগল এপ্লিকেশনটি নিয়ে নেয় ও পরের বছর গুগল ম্যাপ নামে পাবলিশ করা হয়। ২০০৬ সালে গুগল ম্যাপে “Street View” নামে ফিচারটি যুক্ত করা হয়। ২০০৭ সালের নভেম্বর মাসে My Location ফিচারটি সহ মোবাইল ভার্সন ২.০ বের করা হয়।

সেই বছরই রিলিজ হওয়া এ্যাপলের আইফোনে গুগল ম্যাপ যুক্ত করা হয়েছিলো।” ২০০৮ সালে এপ্লিকেশনটির এন্ড্রয়েড ভার্সন রিলিজ করা হয়। ২০১১ সালে গুগল ম্যাপের আমিরিকান ভার্সনে “Map Maker” ফিচারটি চালু করা হয় যার মাধ্যমে ইউজাররা ম্যাপটিতে পরিবর্তন ও সংশোধন করতে পারতো। যদিও পরবর্তীতে এটি বাদ দিয়ে দেওয়া হয়।

২০১২ সালে আইফোন তাদের মোবাইল থেকে প্রি-ইনস্টল গুগল ম্যাপ সরিয়ে ফেলে। তবে এ্যাপ স্টোরে যুক্ত করে নেওয়া হয়েছিলো যাতে যে কেই প্রয়োজন মতো ইন্সটল করে ব্যবহার করতে পারে।”

২০১৫ সারে গুগল ম্যাপ Local Guides Programme বের করে। 2016″ সালের এপ্রিলে মাসে গুগল ম্যাপ” তাদের Satellite View Maping কে ৭০০ ট্রিলিয়ন” পিক্সেলে ধারণ করে।”

প্লাটফর্মটি কিভাবে আয় করেঃ

গুগল ম্যাপের আয়ের একটি বড় অংশ আসে এড থেকে। এছাড়াও Landmark Navigation, Api & Partnership এবং Premium Subscription থেকেও একটি বড় অংকের আয় করে থাকে”

গুগল ম্যাপ ব্যবহার করে নির্দিষ্ট কোনো শহর বা এলাকার হোটেল, দোকান ও রেস্টুরেন্টসহ যেকেনো কিছু নিয়ে সার্চ করলে রিলেটেড কিছু সাজেশন সামনে আসে। সার্চের রেজাল্টে দেখানো সাজেশন গুলোর মধ্যে কিছু এড দেখা যায়।”

এই এডগুলোর জন্য কোম্পানিগুলো গুগল ম্যাপকে টাকা দিয়ে থাকে। প্লাটফর্মটিতে কোনো ব্রান্ড বা বিজনেসের লোগো বা সাজেশন পিন করে দেখিয়ে থাকে। এর ফলে অন্যান্য ইউজারদের ব্রাড বা বিজনেসটি আলাদাভাবে চোখে পড়ে। এই পিন সার্ভিস দেওয়ার মাধ্যমে প্লাটফর্মটি আয় করে থাকে।”

আরো পড়ুনঃ গুগল মানচিত্র

Landmarks Navigation এর জন্য গুগল ম্যাপ বেশ জনপ্রিয়। গুগল ম্যাপ তাদের নেভিগেশনের জন্য লোকার বিজনেসের নাম ব্যবহার করে থাকে। বিভিন্ন এলাকায় নেভিগেশনের সময় দিকনির্দেশনা দেবার জন্য প্লাটফর্মটি বিভিন্ন ব্রান্ডের নাম ব্যবহার করে থাকে। এর ফলে ব্রান্ডশুলোর এডভার্টাইজিং জয়। তাই ব্রান্ডগুলো গুগল ম্যাপকে টাকা দিয়ে থাকে।

বিভিন্ন কোম্পানি তাদের প্রয়োজনের জন্য কাস্টমাইজড ম্যাপ ব্যবহার করে থাকে যার জন্য গুগলে টাকা দিতে হয়। এসব থেকে গুগল ম্যাপ বেশ বড় অংকের টাকা আয় করে থাকে। গুগল ম্যাপ তাদের Premium Subscription থেকেও আয় করে থাকে।

যাত্রার প্রথম থেকেই” গুগল ম্যাপ ফ্রি সার্ভিস দিয়ে আসছে। তাই প্লাটফর্মটির” আয় খুই সীমিত। তাও তাদের আয় অনেক।

গুগল ম্যাপের সুবিধাঃ

বর্তমানে গুগল ম্যাপ খুবই জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। প্রায় প্রত্যেকে নেভিগেশনের জন্য এটি ব্যবহার করে থাকে। যে কেই কোনো এলাকার রাস্তা, দোকান, হোটেল ইত্যাদি গুগল ম্যাপের মাধ্যমে দেখতে পারে। যদি কেউ নতুন” কোনো এলাকায় যায় আর যদি সেই এলাকার কিছু না চেনে” তাহলে গুগল ম্যাপের মাধ্যমে সে সেই যায়গা সম্পর্কে ধারণা পেতে পারে”

যদি কেউ কোনে নতুন জায়গায় যেতে চায় তাহলে নেভিগেশনের মাধ্যমে খুব সহজেই যেতে পারে। এর মাধ্যমে যেকোনো জায়গায় খুব সহজেই চলাফেরা করা যায়।”

You May Also Like

About the Author: Team SEO

Leave a Reply

Your email address will not be published.