মোবাইল ব্যাংকিং অ্যাকাউন্ট ওপেন করুন ঘরে বসেই [Mobile Banking In Bangladesh] 2021

Mobile banking in Bangladesh

আজকে আপনাদের সাথে কথা বলবো ১০ টি বাংলাদেশি মোবাইল ফিন্যান্সিয়াল (MFS) সার্ভিস নিয়ে। 

যেগুলো আপনি ঘরে বসেই ওপেন করতে পারবেন, সেগুলোর কথাই বলা হবে। 

আমরা প্রায় সবাই মোবাইল ব্যাংকিং করে থাকি, আর মোবাইল ব্যাংকিং এর কথা শুনলেই আমরা যা মনে করি;

তাহলো; বিকাশ

কিন্তু বাংলাদেশে প্রায় ১০ এর অধিক জনপ্রিয় মোবাইল ব্যাংকিং সার্ভিস রয়েছে।

আজকে মূলত সেসব নিয়েই কথা বলব, বলে রাখা ভালো;

আজকের আলোচনার সকল ব্যাংকিং আপনি ঘরে বসেই ওপেন করতে পারবেন।

এর লিস্ট গুলো নিচে দেওয়া হলোঃ 

  1. bKash
  2. Nagad
  3. Rocket
  4. SureCash
  5. OK wallet
  6. mCash
  7. Upay
  8. iPay
  9. Dmoney
  10. Islamic Wallet

এখানে আমার পছন্দ মত ধারাবাহিক ভাবে সাজানো হয়েছে।

উপরের ১০ টি এমএফএস এর মধ্যে প্রথম ৬ টি মোবাইল ফিন্যান্সিয়াল সার্ভিস এবং বাকি গুলো ওয়ালেট।

১. বিকাশ (bKash)

আপনারা প্রায় সবাই বিকাশ চিনেন মোবাইল ব্যাংকিং হিসেবে। কারন বাংলাদেশের প্রথম মোবাইল ব্যাংকিংই বিকাশ।

আমাদের অনেকেই বিকাশের মাধ্যমেই লেনদেন করেছি। ফলে আমরা বিকাশকে আমাদের দৈনন্দিন জিবনে মিশিয়ে নিয়েছি।

বিকাশ অ্যাকাউন্ট খোলার জন্য আপনাকে এজেন্ট পয়েন্টে যেতে হবে না। কারন আপনার ফোন দিয়েই খোলতে পারবেন বিকাশ অ্যাকাউন্ট।

কি কি লাগবে বিকাশ অ্যাকাউন্ট খোলার জন্যঃ

  • বৈধ এনআইডি
  • মোবাইল ফোন
  • ইন্টারনেট কানেকশন

আপনি যদি বিকাশ অ্যাকাউন্ট ওপেন করতে চান, তাহলে ৫০ টাকা বোনাস পাবেন।*

আর অ্যাকাউন্ট ওপেন করা খুব কঠিন না, তাই আমি শুধু আপনাকে বলে দিচ্ছি, আপনি নিচের লিংক থেকে ডাউনলোড করে নেন।

ডাউনলোড করে আপনার এনআইডি কার্ড দিয়ে অ্যাকাউন্ট ওপেন করতে পারবেন।

bKash App Download and Get 50৳

*বোনাস বিকাশ দিবে, তাই যেকোনো সময় পরিবর্তন হতে পারে

 

২. নগদ (Nagad)

বিকাশের মতই নগদ একটি ডিজিটাল ফিন্যান্সিয়াল সার্ভিস নিয়ে এসেছে বাংলাদেশে প্রায় ২ বছর হয়েছে।

এই কয়েকদিনে বেশ অনেক জনপ্রিয়তা লাভ করেছে। তাই বিকাশের মতই নগদ তাদের প্রোগ্রেস চালিয়ে যেতে পারছে।

সম্প্রতি চার্জিং নিয়ে নগদ প্রায় অনেকটা এগিয়ে গেছে। যায় হউক এসব কথা আপনারা প্রায় সবাই জানেন।

কি কি লাগবে নগদ অ্যাকাউন্ট খোলার জন্যঃ

  • বৈধ এনআইডি
  • মোবাইল ফোন
  • ইন্টারনেট কানেকশন

তবে এখন আপনি *167# ডায়াল করে ৪ (চার) সংখ্যার পিন সেট করে নিলেই নগদ অ্যাকাউন্ট ওপেন করা যায়।

নগদ অ্যাপ দিয়েও আপনি নগদ অ্যাকাউন্ট ওপেন করতে পারবেন।
আপনি নিচের লিংক থেকে অ্যাপ ডাউনলোড করে ব্যবহার করতে পারবেন।

Android এবং iOS

 

৩. রকেট (Rocket)

ডাচ বাংলা ব্যাংক তাদের মোবাইল ব্যাংকিং সেবা নিয়ে আসে, তা হলো রকেট। যা আপনারা অনেকেই ব্যবহার করেন।

রকেট প্রায় বিকাশের মতই জনপ্রিয় একটি মোবাইল ব্যাংকিং সার্ভিস। সেটি দিয়েও আপনি বিকাশের মতই লেনদেন করতে পারবেন।

বরাবরের মত রকেট আপনি অ্যাপ দিয়ে ওপেন করতে পারবেন।

তবে কিছু কথাঃ

অ্যাকাউন্ট ওপেন করার সময় এনআইডি কার্ড এর ছবি তুলার সময় ফোনটি সোজা রাখুন।
এর পরে এনআইডি ছবি গুলো ক্রপ করে আপলোড করুন।

রকেট অ্যাকাউন্ট ওপেন করে ভেরিফাই করলেই পাবেন ২৫ টাকা ইনস্ট্যান্ট বোনাস

অ্যাপ লিংকঃ

Android এবং iOS

 

৪. শিওরক্যাশ (SureCash)

রূপালী ব্যাংক তাদের মোবাইল ফিন্যান্সিয়াল সার্ভিস হিসেবে শিওরক্যাশ নিয়ে আসে।
যদিও শিওরক্যাশ গ্রামে গঞ্জে এতটাও দেখা যায় না, মানে জনপ্রিয়তা তেমন নেই।
তবে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ফি দেওার ক্ষেত্রে শিওরক্যাশ অনেক ভূমিকা রেখেছে।
ফলে ব্যবহৃত হচ্ছে শিওরক্যাশ।

ঘরে বসেই মাত্র ২ মিনিটেই ওপেন করতে পারবেন শিওরক্যাশ অ্যাকাউন্ট অ্যাপ দিয়ে।

অ্যাপ লিঙ্কঃ

Android এবং iOS

৫. ওকে ওয়ালেট (OK Wallet)

ওয়ান ব্যাংক তাদের মোবাইল ফিন্যান্সিয়াল সার্ভিস হিসেবে নিয়ে আসে ওকে ওয়ালেট
ফিচার্সের দিক থেকে বিকাশ এর পরেই যার স্থান রয়েছে, সেটি হচ্ছে ওকে ওয়ালেট।
যদিও নগদ, রকেটের মত ওকে ওয়ালেট এখনো এগুতে পারে নি সার্বজনীন ভাবে।
নগদ রকেট এখন গ্রাম অঞ্চল থেকে শুরু করে প্রায় সবখানেই পাওয়া যায়।
ওকে ওয়ালেটের ক্ষেত্রে সেরকম এখনো হয়ে ওঠে নি। তবে আশা করা যায় খুব শীগ্রই জনপ্রিয়তা পাবে।

ওকে ওয়ালেটে বেশ কিছু দিন আগেই ডিজিটাল অ্যাকাউন্ট ওপেন করার সুবিধা নিয়ে এসেছিল।
অ্যাপ দিয়ে খুব সহজেই ওকে ওয়ালেট অ্যাকাউন্ট ওপেন করা যায়।

অ্যাপ লিংকঃ

Android এবং iOS

৬. এমক্যাশ (mCash)

ইসলামি ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেড তাদের মোবাইল ব্যাংকিং চালু করেছে, যার নাম দেওয়া হয়েছে এমক্যাশ।
আমাদের কাছে এমক্যাশ ততটা পরিচিত না হলেও অনেকেই সেটি ব্যবহার করছেন।
সম্প্রতি এমক্যাশ সেলফিন অ্যাপের সাথে সংযুক্ত হওয়ার ফলে সেটির ব্যবহার অনেক বেড়েছে।


ক্যাশইন, ক্যাশআউট, ব্যাংক ট্রান্সফার সহ অন্যান্য সার্ভিস রয়েছে এমক্যাশ-এ।
তবে এমক্যাশ সেলফিনের সাথে যুক্ত করলে সেটি আরো বেশি ব্যবহার যোগ্য হয়।

সেলফিন অ্যাপ ব্যবহার করে mCash অ্যাকাউন্ট খোলা যায়।
সেলফিন নিয়ে বিস্তারিত

 

৭. ইউপে (Upay)

ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংক তাদের ডিজিটাল ওয়ালেট হিসেবে ইউপে (Upay) নিয়ে এসেছে।
ইউপে মূলত ডিজিটাল পেমেন্ট সিস্টেম হিসেবে পরিচিত, এটি পুরপুরি মোবাইল ব্যাংকিং নয়।
ব্যাংক থেকে টাকা তুলা, ব্যাংকে টাকা পাঠানো, শপিং পেমেন্ট, মার্চেন্ট পেমেন্ট সহ ইত্যাদি কাজের জন্য ইউপে।

এটি ব্যবহার করলে আপনাকে ক্যাশ টাকা সাথে নিয়ে চলা ফেরা করার ভয় থাকবে না।
কেননা আপনি আপনার ব্যাংকের টাকা ব্যাংকে রেখেই শপিং করে পেমেন্ট করতে পারবেন।
ইউপে (Upay) ওপেন করাও খুব সহজ। অ্যাপ ডাউনলোড করে অন্য সকল কিছুর মতই ভেরিফাই করলেই হবে।

অ্যাপ লিংকঃ 
→ বর্তমানে ইউপে তাদের সেবা বন্ধন করে দিয়েছে, তবে "উপায়" নামক সেবা চালু করেছে।

ইউপে ব্যাংক সংযোজনঃ
আপনি যেকোনো ব্যাংক অ্যাড করতে পারবেন, তবে ইউপে এবং ব্যাংকের নাম এক হতে হবে।
সব কিছু ঠিক থাকলে আপনি ব্যাংক যুক্ত করার জন্য রিকোয়েস্ট পাঠালে,
তারা আপনার ব্যাংকে অল্প পরিমাণ টাকা/পয়সা পাঠাবে। সেটি আসতে আসতে ২-৩ দিন সময় নিবে।
আপনি আপনার ব্যাংক এর লেনদেন চেক করে ঐ পরিমাণ টাকা/পয়সা বসিয়ে দিলেই ব্যাংক অ্যাড হয়ে যাবে।

 

৮. (আইপে) iPay

ইউপে-র মতই আইপে একটি ডিজিটাল ওয়ালেট। এটি দিয়ে আপনি অনেক কাজ করতে পারবেন।
যেসব কাজ আপনি ইউপে তে করতে পারতেন।
একই ভাবে আপনার ক্যাশ নিয়ে চলার দরকার নেই, আপনি ফোন দিয়েই যাবতীয় পেমেন্ট করতে পারবেন।
আর টাকা অ্যাড করার জন্য আপনার ভেরিফাইড ব্যাংক তো আছে। অ্যাপ ব্যবহার করে ওপেন করে ফেলতে পারবেন আইপে।

অ্যাপ লিংকঃ
Android এবং iOS

আইপে ব্যাংক সংযোজনঃ
আপনি যেকোনো ব্যাংক অ্যাড করতে পারবেন, তবে আইপে এবং ব্যাংকের নাম এক হতে হবে।
সব কিছু ঠিক থাকলে আপনি ব্যাংক যুক্ত করার জন্য রিকোয়েস্ট পাঠালে,
তারা আপনার ব্যাংকে অল্প পরিমাণ টাকা/পয়সা পাঠাবে। সেটি আসতে আসতে ২-৩ দিন সময় নিবে।
আপনি আপনার ব্যাংক এর লেনদেন চেক করে ঐ পরিমাণ টাকা/পয়সা বসিয়ে দিলেই ব্যাংক অ্যাড হয়ে যাবে।

 

৯. ডিমানি (Dmoney)

ডিমানি-র উদ্দেশ্য হল টাকা কে ডিজিটাল ভাবে সর্বত্র ব্যবহার করা। এটি কোনো মোবাইল ব্যাংকিং নয়।
ইউপে, আইপে-র মতই ডিমানি একটি ফ্লাটফর্ম। তবে ডিমানিতে কিছু অপশন রয়েছে;

আপনি শপিং করতে পারবেন, টিকিট ক্রয় করতে পারবেন, এটিএম টাকা উত্তোলন সহ আরো নানান সুবিধা রয়েছে।
ডিমানির আচ্চউন্ট ওপেন করা একদম সিম্পল, বাকি গুলোর মতই।
অ্যাপ দিয়ে ডিমানি অ্যাকাউন্ট ওপেন করা যায়।

অ্যাপ লিংকঃ
Android এবং iOS

 

১০. ইসলামিক ওয়ালেট (Islamic Wallet)

ডিমানি কে ৯৮ শতাংশ নকল করা হয়েছে ইসলামিক ওয়ালেট অ্যাপে।
যদিও ২ টা আলাদা সার্ভিস দিয়ে থাকে, তবু তাদের অ্যাপ ইন্টারফেইস প্রায় একই।
ইসলামিক ওয়ালেট টি আল-আরাফা ইসলামি ব্যাংকের একটি ডিজিটাল ওয়ালেট সার্ভিস।

ডিমানি তে আপনি যেকোনো ব্যাংক অ্যাকাউন্ট অ্যাড করতে পারবেন কিন্তু ইসলামিক ওয়ালেটে সেটি সীমাবদ্ধ।
আপনি শুধু মাত্র আল-আরাফা ইসলামি ব্যাংক অ্যাকাউন্টই অ্যাড করতে পারবেন উপরের নিয়ত মতে।
অ্যাপ ব্যবহার করে আপনি ইসলামিক ওয়ালেটের অ্যাকাউন্ট ওপেন করতে পারবেন।

অ্যাপ লিংকঃ
Android এবং iOS

 

শেষ কথাঃ 

ইন্টারনেট পরিবর্তনশীল, তাই ইন্টারনেটের সকল কিছুই পরিবর্তন হয়ে থাকে।
আমি যা যা লিখেছি, হতে পারে সেটি কিছুক্ষণ পরেই পরিবর্তন হয়ে যেতে পারে।
তাই আপনাদের উচিত সর্বশেষ আপডেটের জন্য অপেক্ষা করা, কেননা পরিবর্তন গুলো আমার হাতে না।
আর যদি আপনার কাছে মনে হয় যে আমি কোথাও ভুল বলেছি, বা আমার লিখাতে ভুল রয়েছে তবে আমায় ধরিয়ে দিন।
আরো অন্য কোনো বিষয়ে জানতে চাইলে কমেন্ট করুন।

যদি পোস্টটি ভালো লাগে, তাহলে শেয়ার করে ফেলুন আপনার বন্ধুদের সাথে।
ধন্যবাদ।

You May Also Like

About the Author: infotalkbdcom

Leave a Reply

Your email address will not be published.